ভাঙ্গা উজেলার কাউলীবেড়ায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল সংস্কৃতি কর্মীদের মিলনমেলা

0
228
ভাঙ্গা উজেলার কাউলীবেড়ায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল সংস্কৃতি কর্মীদের মিলনমেলা
ভাঙ্গা উজেলার কাউলীবেড়ায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল সংস্কৃতি কর্মীদের মিলনমেলা

ক্রান্তিকাল ডেস্ক – গতকাল ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার কাউলীবেড়া ইউনিয়ন হাইস্কুল মাঠে ঈদ উত্তর মিলনমেলায় উপস্থিত হয়েছিলেন তারেক মাসুদ ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব, সাংস্কৃতিক সংগঠক এবং প্রয়াত চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদের ভাই জনাব সাঈদ মাসুদ। মিলনমেলায় অংশ নিয়েছিলেন তারেক মাসুদ ফাউন্ডেশনের সদস্যবৃন্দ, সভাচর সাংস্কৃতিক সংযোগের সদস্যবৃন্দ এবং মোটরা লালন আনন্দধামের সদস্য-অনুরাগীবৃন্দ। প্রায় পঞ্চাশজন সংস্কৃতিকর্মীর উপস্থিতিতে আলোচনা ও মতবিনিময়ের আসরটি শেষমেষ জম্পেশ এক আড্ডার রূপ নেয়। সংগঠক সাঈদ মাসুদ বিস্মায়াভিভূত কন্ঠে অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, কাউলীবেড়ার মত একটি প্রত্যন্ত এলাকায় এক ঝাঁক বুদ্ধিদীপ্ত মেধাবী ও সৃজনশীল তরুণ-যুবকের উপস্থিতি দেখে আনন্দ ও খুশিতে আমার বুক ভরে গেল।

সভাচর সাংস্কৃতিক সংযোগের কার্যকরী সদস্য ইতিহাস গবেষক আজগর আলী বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে তিল তিল করে নার্সিং করে স্কুল-কলেজের অনেক শিক্ষার্থী, এলাকার ছোট ভাইদের স্বদেশপ্রেম ও যুক্তিবোধে উদ্বুদ্ধ করার মধ্য দিয়ে একটি পরিশীলিত প্রজন্ম গড়ে তোলার কাজ অনেকখানি এগিয়ে নিয়েছি। আমরা এই ধারা অব্যাহত রাখতে চাই।

লালন আনন্দধামের বর্তমান সভাপতি দীনেশ চন্দ্র রায় বলেন, অত্র এলাকায় চমৎকার একটি সাংস্কৃতিক পরিবেশ গড়ে তোলার পেছনে লালন আনন্দধামের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। আমরা এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ জাহিদ হাসানের প্রতি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ।

অনুষ্ঠানে শিল্প-সংস্কৃতির বর্তমান সংকট ও উত্তরণের উপায় নিয়ে বিভিন্নজন গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন। এ সময় তারেক মাসুদ ফাউন্ডেশন কর্তৃক প্রকাশিত ‘তারেক মাসুদ নির্বাচিত সংখ্যা’ নামে একটি স্মারক গ্রন্থ লালন আনন্দধামের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ জাহিদ হাসানের বড় ভাই জনাব ওয়াহিদুজ্জামানের হাতে আনন্দধামের সকল সদস্যদের জন্য তুলে দেন সংগঠক সাঈদ মাসুদ।

অনুষ্ঠানে তারেক মাসুদকে নিয়ে স্মৃতিচারণের এক পর্যায়ে অনেকেই অশ্রুসজল হয়ে ওঠেন। লেখক মাতুব্বর তোফায়েল হোসেন, কবি জুনায়েত রাসেল প্রমুখের আলোচনায় তারেক মাসুদের অসামান্য প্রতিভা এবং সৃষ্টিকর্মের বিষয় উঠে আসে। তারেক মাসুদের জন্মস্থান ভাঙ্গা উপজেলা বলে আমাদের কাছে তারেক মাসুদের মৃত্যু মানে ব্যক্তিগত ক্ষতি।

মিলনমেলায় আরো উপস্থিত ছিলেন– এটিইও জিল্লুর রহমান, এটিও রাজু আহমেদ, মাদ্রাসা শিক্ষক কুদরাতুর রহমান কল্লোল, বাচিক শিল্পী পলাশ, প্রাইমারি শিক্ষক প্রদ্বীপ দত্ত, সুভাষ মন্ডল প্রমুখ।

FB Comments

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে