আপত্তিকর অবস্থায় স্ত্রীর সাথে আ’লীগ নেতাকে পেয়ে পেটালেন স্বামী !!

0
253

আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি- জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার একটি আশ্রয়ন প্রকল্প (গুচ্ছ গ্রামে) স্ত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে হাতে নাতে ধরে ফেলেন স্বামী। ওই সময় ওই নেতাকে গাছের সাথে বেঁধে বেধরক পিটিয়ে আহত করে স্বামী। এরপর ঘটনাটি সালিশি বৈঠক করে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন ইউপি চেয়ারম্যান ডি.এম রাহেল ইমাম।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৩ জুন) দুপুর ১২ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে।
ওই আওয়ামী লীগ নেতার নাম মোতালেব হোসেন। তিনি রামশালা গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে। মোতালেব হোসেন উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন।

তার দলীয় পদবী নিশ্চিত করেছেন, সোনামুখী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুব আলম মানিক।
ওই ঘটনায় গৃহবধু বিচার চেয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে দেখছেন বলে জানিয়েছেন আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান।

সরেজমিনে গত কাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই আশ্রয়ন প্রকল্পে গিয়ে দেখা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতা মোতালেব হোসেন ও গৃহবধুকে দেখতে লোকজন ভীড় করছেন। তখন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডি.এম রাহেল ইমাম সেখানে বৈঠক বসিয়ে সালিশ করছেন। বিষয়টি অাক্কেলপুর থানা পুলিশের অবগত হলে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মোতালেব হোসেন ওই গৃহবধুর স্বামীর বন্ধু। সেই সুবাদে দীর্ঘদিন থেকে মোতালেব ওই গৃহবধুর বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন। মোতালেবের ওই আশ্রয়ন প্রকল্পের সামনে একটি গভীর নলকূপ রয়েছে। ঘটনার দিন (বৃহস্পতিবার) মোতালেবের গভীর নলকূপের হালখাতার দিন ছিল। ওই দিন সকাল থেকে মোতালেব ওই নলকূপেই অবস্থান করছিলেন। বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে ওই গৃহবধুর স্বামী মোতালেবের গভীর নলকূপের ঘরে যায়। তখন দুপুর ১২ টার দিকে মোতালেব ওই গৃহবধুর স্বামীকে নলকূপের ঘরে রেখে গৃহবধুর বাড়িতে আসে। কিছুক্ষণ পরে গৃহবধুর স্বামী ঘরে ঢুকে মোতালেব ও তার স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় ধরে চিৎকার দেয়। এসময় স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে ওই গৃহবধুর স্বামী মোতালেবকে গাছের সাথে বেঁধে বেধরক পেটায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত হন। সেখানে তিনি সালিশি বৈঠক বসান। বৈঠক চলাকালীন সময়ে কৌশলে মোতালেব পালিয়ে যায়। কিছু সময় পরে চেয়ারম্যানও ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।

স্থানীয় বাসিন্দা মহিফুল ইসলাম বলেন, গৃহবধুর স্বামীর চিৎকার শুনে আমি তাদের বাড়িতে যাই। এসময় ঘরে ঢুকে দেখি গৃহবধুর স্বামী মোতালেবকে ঠেঁসে ধরে বসে অাছে আর পাশে তার স্ত্রী দাঁড়িয়ে অাছে।

নূর-উননবী বলেন চিৎকার শুনে প্রথমে আমি তাদের বাড়িতে যাই ওই সময় মোতালেবের পরনের লুঙ্গী খোলা। গৃহবধু’র স্বামী তাদেরকে অপত্তিকর অবস্থায় হাতে নাতে ধরে। পরে স্থানীয় লোকজনের সামনে মোতালেবকে মারপিট করেন ওই গৃহবধুর স্বামী।

গৃহবধুর স্বামী বলেন, ❝ওই দিন মোতালেবের গভির নলকূপে হালখাতা চলছিল। দুপুর ১২ টার দিকে মোতালেব আমাকে ক্যাশে বসিয়ে রেখে আমার বাড়িতে যায়। তখন আমার সন্দেহ হয়। আমি কিছু সময় পরে বাড়িতে গিয়ে ঘরে ঢুকে দেখি মোতালেব ও আমার স্ত্রী আপত্তিকর অবস্থায় রয়েছে। পরে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। কিন্তু তারা আমার এই ঘটনা কোন বিচার না করে মোতালেবকে কৌশলে সালিশ বৈঠক থেকে পালিয়ে দেয়। আমি এর বিচার চাই।❞

এদিকে গৃহবধু বলেন, মোতালেব আরও আগে থেকে আমাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করত। আমার স্বামী তাকে ধরে মেরেছে। আমার দূর্নাম উঠার পরে স্বামী আর আমাকে নিতে চায় না। আবার বিচারও পেলাম না। এখন মরা ছাড়া আমার কোন উপাই দেখি না। তবুও বিচার চেয়ে থানায় অভিযোগ দিয়েছি।
অভিযুক্ত মোতালেব হোসেন বলেন, আমি আশ্রয়ন প্রকল্পের পাশে গভির নলকূপের ব্যবসা করি। ঘটনার দিন আমি ওই গৃহবধুর বাড়িতে গিয়েছিলাম পানি খেতে। ওই সময় তাদের বাড়িতে তার শালিকা ও শ্বাশুড়ি এবং উজ্জল নামে এক যুবক বসে ছিল। হঠাৎ করে ওই গৃহবধুর স্বামী ঘরে ঢুকেই আমার গেঞ্জি টেনে ধরে মারপিট শুরু করে। পরে ঘর থেকে বের করে এনে গাছের সাথে বেঁধে নূর-উননবী ও ওই গৃহবধুর স্বামী তাকে পেটায় বলে জানান তিনি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোনামুখী ইউপি চেয়ারম্যান ডি.এম রাহেল ইমাম বলেন, ঘটনার দিন মেয়েটির সাথে মোতালেবের কোন কিছু হয়নি। তার স্বামী সন্দেহের বসে মোতালেবকে আটকিয়ে পিটিয়েছে। যেহেতু ওই গৃহবধুই স্বীকার করছেন মোতালেব তার কোন ক্ষতি করে নি। তার পরেও সালিশ বৈঠকের আয়োজন করেছিলাম। কিন্তু কেউ তা মানেন নি। এবিষয়ে তিনি কোন নিউজ করতে নিষেধ করেন।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এঘটনা জানার পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। পরে ওই গৃহবধু থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য একজন অফিসারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

FB Comments

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে